আমলকী বিভিন্ন রোগের মহাঔষধ

নানা রোগের মহৌষধ আমলকি, আমলকীর এমন কিছু গুণাগুণ সম্পর্কে জেনে নিনঃ

আমলকী বিভিন্ন অসুখ সারানো ছাড়াও রোগপ্রতিরোধক ক্ষমতা গড়ে তুলতে দারুণ সাহায্য করে। ত্বক, চুল ও চোখ ভালো রাখার জন্য আমলকী উপকারী। আমলকীর ভেষজ গুণ অনেক। এতে প্রচুর ভিটামিন সি থাকে। পুষ্টিবিজ্ঞানীদের মতে, আমলকীতে পেয়ারা ও লেবুর চেয়ে যথাক্রমে তিন গুণ ও ১০ গুণ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে। এতে আপেলের চেয়ে ১২০ গুণ, আমের চেয়ে ২৪ গুণ এবং কলার চেয়ে ৬০ গুণ বেশি ভিটামিন সি রয়েছে। এটি হজমে সাহায্য করে ও স্টমাকে এসিডের ব্যালান্স বজায় রাখে; ব্লাড সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রেখে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করতে সাহায্য করে; হার্ট সুস্থ রাখে এবং ফুসফুসকে শক্তিশালী করে তোলে। আমলকী খিদে বাড়াতেও সাহায্য করে।

আমলকী ভিটামিন সি সমৃদ্ধ রসালো ফল। এ ফলের প্রধান অংশ পানি। এতে প্রায় ৮০ থেকে ৯৫ ভাগ পানি থাকে।  শর্করা ও পেকটিন বাদে পাওয়া যায় নানা রকমের খনিজ ও ভিটামিন।

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ফারাহ মাসুদা আমলকীর পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানান।

প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকীতে থাকে ৯ মাইক্রোগ্রাম ক্যারোটিন। ফলের ক্যারোটিন ভিটামিন এ’র কাজ করে।

প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকীতে ০.০৩ মি.গ্রা থায়ামিন, ০.০১মি.গ্রা রিবোফ্লেভিন ও ১.২ মি.গ্রা লৌহ পাওয়া যায়।

আমলকীতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘সি’ থাকে। প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকীতে ৬০০ মি.গ্রা ভিটামিন পাওয়া যায়। যা একটি বড় মাপের কমলার চেয়ে বেশি।

এছাড়াও এতে রয়েছে ক্যালসিয়াম ও ফসফরাস। প্রতি ১০০ গ্রাম আমলকীতে ৫০ মি.গ্রা ক্যালসিয়াম ও ২০ মি.গ্রা ফসফরাস থাকে।

সুস্থ সবল থাকতে প্রতিদিন মৌসুমি ফল আমলকী খাওয়ার পরামর্শ দেন ফারাহ মাসুদা। কারণ আমলকীর নানা গুণের মধ্যে আছে-

* আমলকী দাঁত ও মাড়ি সুস্থ রাখতে সাহায্য করে।

* এই ফল ক্ষুধা মন্দা দূর করে ও রুচি বাড়াতে সাহায্য করে।

* নিয়মিত আমলকী খেলে ত্বক সুস্থ থাকে। নানা রকমের চর্মরোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। এছাড়াও এটি ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে।

* আমলকী খেলে এবং চুলে ব্যবহার করলে চুল সুস্থ ও সুন্দর থাকে।

* এছাড়াও রয়েছে নানা রকমের ঔষধি গুণ। নানা রকমের রোগ থেকে মুক্তি পেতে এটি সাহায্য করে।

আর এক লেখকের উদ্দিপকঃ

আমাদের দেশে আমলকী অত্যন্ত সুপরিচিত এবং দেশীয় ফল। এক সময় বাংলার গ্রাম গঞ্জে, শহরে সর্বত্রই এ ফলের প্রচুর গাছ ছিল। বর্তমানে এ ফলের গাছটি কমে গেছে। সারা বছরেই এ ফলটি বাজারে পাওয়া যায়। তবে বর্ষা ও শীত মৌসুমে এ ফলটি বেশি পাওয়া যায়। ছোট ছোট হালকা সবুজ রঙের গোলাকৃতি হয় এই ফলটি। ফলটি খেতে টক এবং তেতো লাগে। আমলকী খেয়ে পানি খেলে মিষ্টি লাগে।
এটি একটি উল্লেখযোগ্য ঔষধি ফল। প্রসাধনী সামগ্রী, খাদ্য ও ঔষধ হিসেবে আমলকী আমাদের জীবনের সাথে গুরুত্বসহকারে মিশে আছে। ‘আম’ অর্থ সমস্ত আর ‘লকী’ (নকি) অর্থ পরিষ্কার করা। যার অর্থ দাঁড়ায় দেহ থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দেওয়া। আমিষ জাতীয় খাদ্য পরিপাকের পর তা থেকে সৃষ্ট বর্জ্য উপাদান যথা ইউরিয়া ও ইউরিক এসিড ইত্যাদি অম্ল বা এসিড পদার্থ দেহের জন্য ক্ষতিকর বিষাক্ত পদার্থে পরিণত হয়। আমলকীর ক্ষারকীয় গুণ এ সকল পদার্থকে নিরপেক্ষ করে তোলে। ফলে বর্জ্য পদার্থ দেহের কোন ক্ষতি করতে পারেনা। প্রস্রাবের সাথে বেরিয়ে যায়। আমলকী একটি শক্তিশালী এন্টি অক্সিডেন্ট যা রক্তের গন্ধহীন গ্লুকোজ কমিয়ে রাখতে সাহায্য করে। অতিরিক্ত গ্লুকোজ গ্লিসারলে রুপান্তরিত হতে পারেনা। এতে দেহে অতিরিক্ত চর্বি জমার সুযোগ পায় না। ফলে হার্টের ব্লক বা হৃদরোগ হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।
আমলকীকে এন্টি এইজিংও বলা হয়। যা নিয়মিত সেবনের ফলে বার্ধক্যের চাপ বা মানুষের বার্ধক্য বিলম্বিত করে দীর্ঘায়ু লাভ হয়। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য আমলকী খুবই উপকারী। রক্তের শর্কারাকে নিয়ন্ত্রণ করে।
পুষ্টি বিজ্ঞানীদের মতে প্রতি ১০০ গ্রাম খাবার উপযোগী আমলকীতে পুষ্টি উপাদান হলো: জলীয় অংশ ৯১.৪ গ্রাম, প্রোটিন ০.৯ গ্রাম, শর্করা ০.২ গ্রাম, খনিজ পদার্থ ০.৭ গ্রাম, আঁশ ৩.৪ গ্রাম, খাদ্যশক্তি ৭০ কিলোক্যালরি, ক্যালসিয়াম ৩৪ মিলিগ্রাম, লৌহ ৩.১ মিলিগ্রাম, ভিটামিন সি ৪৬৩ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি১ ১০.০২ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি২ ২০.০৮ মিলিগ্রাম, চর্বি ০.২ মিলিগ্রাম তাছাড়া আরও গুরুত্বপূর্ণ খাদ্য উপাদান বিদ্যমান যা শরীরের জন্য খুবই উপকারী।
রাসায়নিক উপাদান: এ ফলের বীজ পর্যন্ত সি এর প্রাকৃতিক উৎস। একে ভিটামিন সি-এর ভান্ডার বলা হয়। এ ফলে আরও আছে: ট্যানিন, ফলয়েডীয় পদার্থ, ফাইল এমবিøক এসিড, লিপিড, গ্রালিক এসিড, এলাজিক এসিড, লিউপিয়ল বিটা সিটোস্টেরল।
বাংলাদেশের ফলের মধ্যে অন্য কোন ফলে এত পরিমাণ ভিটামিন সি আর নেই। তাই ভিটামিন সিএর ঘাটতি পূরণে এ ফলটি খুবই প্রয়োজনীয়। আমলকী বিশেষ করে হৃদপিন্ড, পাকস্থলী, মাথার রোগের বিশেষ উপকারি। ভিটামিন সিএর অভাবে আমাদের শরীরে নানা সমস্যা সৃষ্টি হয়। এর মারাত্মক অভাবে স্কার্ভি রোগ হয়, শরীরে সাদা দাগ দাগ হয়, দাঁত ও মাড়ির ক্ষতি হয়। মাড়ি হতে রক্ত পড়ে চামড়ার সৌন্দর্য কমে, চামড়ার নানারোগ দেখা দেয়, মেয়েদের লিকোরিয়া রোগ, অর্শ প্রভূতি রোগ সৃষ্টি হতে পারে। এসব অভাব পূরণে আমলকী খুবই উপকারী। প্রতিদিন কমপক্ষে দুটি আমলকী খেলে প্রতিদিনের নানা ভিটামিনের অভাব পূরণ হয়ে যায়। আমলকী প্রচুর আঁশ থাকে এবং এর টক ও তেতো স্বাদ মুখের লালা বাড়িয়ে হজমে সহায়ক এনজাইমকে সক্রিয় করে। আমলকী বলকারক, রোগ প্রতিরোধ, যকৃত, পেশী, স্নায়ু মন্ডলের শক্তি বর্ধক রক্ত পরিষ্কারক এবং যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে।
আমলকী গুণের শেষ নেই। শরীরের পরিচর্যায় মায়ের মতই উপকার বলে একে বলা হয় ধাত্রীফল। তাছাড়া আমলকী আরো যে উপকার করে তা হলো:- * আমলকীতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে যা শরীরে ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষবৃদ্ধি কমায়। তাছাড়া আমলকী শরীরের দূষিত পদার্থ বের করে দিয়ে রক্ত বিশুদ্ধ করে। * আমলকীতে অ্যামাইনো এসিড ও পেকটিন আছে। পেকটিন রক্ত থেকে কলোস্টোরোলের সিয়াম কমায় এবং রক্তের খারাপ কলোস্টোরেলের মাত্রা কমিয়ে দেয়। রক্তনালীতে চর্বি জমতে বাঁধা দেয়। * যাদের ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত তারা সবচেয়ে ভালো হয় প্রতিদিন রাত্রে ২/৩টি আমলকী টুকরো টুকরো করে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে পানিটুকু পান করুন। এভাবে প্রতিদিন খান ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে আসবে। উচ্চ রক্তচাপ থাকলে আরও উপকার পাবেন। * আমলকী ত্বকের উজ্জলতা বাড়ায় মসৃণ ও সুন্দর করে। চামড়ার রোগ প্রতিরোধ করে। * বয়সের কারণে চামড়ায় বলিরেখা পড়তে দেয় না। * যাদের ঘনঘন সর্দি কাশি ঠান্ডা লাগে, নাক দিয়ে পানি পড়ে তারা প্রতিদিন আমলকী খান উপকার পাবেন। * যাদের রাতে ঘুম কম হয় তারা কাঁচা বা শুকনো আমলকী কাঁচা দুধে বেটে একটু মাখন মিশিয়ে মাথার তালুতে লাগান। খুবই তাড়াতাড়ি ঘুম আসবে। * যাদের খাওয়ার অরুচি তারা নিয়মিত ২/৩টি আমলকী চিবিয়ে খান মুখের রুচি বাড়বে হজমও বেশি হবে। * যাদের কম বয়সে চোখের সমস্যা দেখা দেয় দৃষ্টি শক্তি কমে যায় তারা নিয়মিত ২/৩টি আমলকীর রস বা ২/৩ চামচ আমলকীর রসের সাথে মধু মিশিয়ে খান উপকার পাবেন। এটি চোখের ছানি পড়া রোগ প্রতিরোধ করে। * যাদের মুখে দুর্গন্ধ তারা আমলকী চিবিয়ে খান এবং সাথে লেবুর রস পানি মিশিয়ে খান সমস্যা কমে আসবে। অল্প বয়সে যাদের মাথার চুল পড়ে যায় তারা আমলকীর রসের সাথে ঘৃতকুমারীর রস মিশিয়ে খান উপকার পাবেন। আমলকীর রস প্রতিদিন চুলে লাগিয়ে ২/৩ ঘন্টা রেখে তারপর ধুয়ে ফেলতে হবে এভাবে ১ মাস ব্যবহার করলে চুলের গোড়া শক্ত হবে চুল পড়া বন্ধ হবে। * যারা রোগারোগা শরীর দুর্বল লাগে বুধ ধড়ফড় করে তারা নিয়মিত আমলকি খান সমস্যা কমবে। শরীরের শক্তিও বাড়বে। শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়বে। * যাদের জ্বর জ্বর ভাব থাকে বা জ্বর লেগেই থাকে তারা আমলকির রস ঘি মিশিয়ে খান উপকার পাবেন। * যাদের এসিডিটির সমস্যা হয় বা মুখে মিষ্টি মিষ্টি ভাব বা ঢেকুর ওঠে তারা ১ গ্রাম পানিতে ১ চামচ আমলকীর গুড়ো ও সামান্য চিনি বা মধু মিশিয়ে দিনে ২ বার খান সমস্যা কমে আসবে। * আমলকী, হরিতকি, বহেড়াকে একত্রে ত্রিফলা বলা হয় এ তিনটি শুকনো ফল একত্রে রাতে ভিজিয়ে রেখে সকাল বেলায় ছেঁকে খালি পেটে শরবত হিসেবে খান পেটের সমস্যা কমবে। ডায়রিয়া আমাশয় হলে আমলকী চিবিয়ে রস খান উপকার পাবে। অত্যান্ত উপকারি এ ফল গাছটি বাড়ির আশেপাশে লাগান যতœ নিন। নিয়মিত ফলটি পরিবারের সবাইকে খেতে দিন।

লেখক : শিক্ষক, কলাম ও স্বাস্থ্য বিষয়ক
ফুলসাইন্দ দ্বি-পাক্ষিক উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ।
গোলাপগঞ্জ, সিলেট।