কচু-মানকচুর ঔষুধি গুণাগুণ

কচু-মানকচুর ঔষুধি গুণাগুণঃ

কচু তিন রকম। যথা ক্ষুদ্র কড়ির মতো, ছোট শামুকের মত ও লম্বা লম্বা ডাঁটার মত।

ক্ষুদ্র বা ছোট কড়ির মত কচু লালাযুক্ত হয়। সিদ্ধ করে এ জাতীয় কচু খেলে কখনও কখনও মুখে লাগে। এ কচুকে সিদ্ধ করে খেলে দুষ্টদোষ (মুখে লাগা) চলে যায়।

ছোট শামুকের মত দেখতে যে কচু, খেলে প্রায় মুখে লাগে না। এ কচু দিয়ে নানারকম তরকারি তৈরি করে খেলে অতি উপাদেয় হয়।

লম্বা ডাঁটার মত কচু ভাত দিয়ে খেতে অতি সু-স্বাদু। এই জাতীয় কচু প্লীহা ও যকৃত রোগীর পক্ষে বিশেষ উপকারী।

কচুর গুণাবলীঃ কচু খেলে শরীর পুষ্ট এবং শুক্র বর্দ্ধিত হয়। কান ও গলার রুক্ষতা বা সুড়সুড়ি দূর করে ও আমাশয় রোগে বিশেষ উপকারী। কচু গুরুপাক হলেও কষ্টদায়ক নয়। এর খোসা ব্যবহারে দাস্ত বন্ধ হয় এবং মূত্রাশয়ের দুর্বলতা দূর হয়।

কচু পাক করলে এর থেকে এক রকম আঠা বের হয়। এ আঠা পাকস্থলীর পক্ষে বিশেষ উপকারী।

 

{বিঃদ্রঃ- আপনি যদি লজ্জাতুন নেছা বইটি সংগ্রহ করেন, তাহলে আপনার পার্শোনাল সমস্যা গুলো আপনি নিজেই সমাধান করতে সক্ষম হবেন তাই আর দেরি না করে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে এখনি যোগাযোগ করে বইটি ক্রয় করুন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের মোবাইল এ্যডমিন আপনার কাছে বইটি পাঠিয়ে দিবে কুরিয়ার সার্ভিস এর মাধ্যমে... ধন্যবাদ}