কর্জ/ধার বা পাওনা টাকা আদায়ের উপায়

কর্জ/ধার বা পাওনা টাকা আদায়ের উপায়ঃ

***টাকা ও মেয়ে/নারী এই দুইটি হতে বিরত থাকুন কারণ যে সর্ম্পকে টাকা ও নারীর প্রভাব থাকে সে সর্ম্পক বেশি দিন থাকে না। তাই যাকে খুব ভালবাসবেন তাকে এই দুইটির বাহিরে ভালবাসবেন।***

বর্তমান পৃথিবীতে মানুষকে বেশি বিস্বাস করলেই বিপদ। আবার বিস্বাস ছাড়া মানুষ ও অচল। কারণ বিস্বাস না করলে মানুষ একা একা কোন কিছু করতে পারে না। তাই মানুষ অন্যের সাহায্য গ্রহণ করে। ঠিক তেমনি আপনি একটা কাজ করতে চাচ্ছেন ঠিক সেই মুহূর্তে আপনার দ্বারা সেই কাজ করা সম্ভব নয়। ঠিক তখনই আপনাকে দেখতে হবে, যে লোক এই কাজে পারদর্শী তার সাহায্য গ্রহণ করা। আপনি দেখতেছেন আপনার বন্ধু সার্কেলের ভিতরেই এই রকম লোক আছে। সুতরাং তার মাধ্যমেই আপনি আপনার কষ্ট সাধ্য কাজ টি করাতে পারবেন। তখন আপনি তাকে সেই কাজের সমপরিমাণ টাকা দিয়ে দিলেন। আপনার সেই বন্ধু সেই কাজ টি করতে সময় নিয়েছে ১৪-২১ দিন। আপনি এখন অপেক্ষা করতেছেন , আর ভাবতেছেন আমার কাজ টি হবে ২১ দিনের ভিতরেই, আপনার এটা বিস্বাস। কিন্তু কোন কারণে আপনার সেই বন্ধু সেই কাজটা ২১ দিন পরেও কোন রেজাল্ট দিতে পারলো না। সে আপনার সাথে যোগাযোগ করে বলতেছে বন্ধু আমার আরো কিছু দিন সময় লাগবে, সে পুনরায় আপনাকে সময় দিলো ১০ দিন, আপনি সেই ১০ দিন অপেক্ষা করেও কোন ফলাফল পাইলেন না। তখন তার সাথে আপনার রাগারাগী ও মনোমালিন্য হয়ে গেলো। তাই আপনি এখন তাকে বলতেছেন যে, আমার কাজ করার লাগবে না তুমি আমার টাকা ফেরত দিয়ে দাও। পরিস্থিতি এই পর্যায়ে আসার পরে সে কিন্তু আপনাকে টাকা ফেরত দিতে রাজি হয়ে যায় কিন্তু সে আজ দিবে কাল দিবে বলতে বলতে অনেক দিন হয়ে যায় কিন্তু তার কাছ থেকে কোন ভাবেই টাকা পাওয়া আর হয়ে ওঠে না। তখন আপনি মহা বিপদের সম্মূখীন হয়ে পড়েন। তার সাথে আপনার বিবাদ সৃষ্টি হয়ে যায়। কিন্তু আপনার আর কোন কিছু করার থাকে না তার কাছে। আপনার কাছে উপযুক্ত প্রামাণ না থাকায় তার সাথে আপনি অসহায়। ঠিক তখন আপনি কি করবেন হতাস হয়ে পড়েছেন, কি করি আর না করি,

আবার অনেকেই রয়েছেন পারিবারিক জিবনে চলার মাঝে অনেকেই নিজের আত্মীয় স্বজনদের বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন কারণে অকারণে টাকা পয়সা ধার বা করচ দিয়ে থাকি কিন্তু সেই টাকা তার কাছ থেকে পেতে অনেক সমস্যার সম্মূখীন ও হতে হয় ঠিক তখন আপনার অবস্থাও উপরের বিবরণের মতো হয়ে যায়। তাই আমাদের প্রতিষ্ঠানের সামান্য একটু প্রয়োগ বিধি যদি আপনারা মেনে চলতে পারেন আশা করি আপনারা আপনাদের অতি কষ্টকর সেই মূলধন ফিরে পেতে পারবেন।

প্রয়োগ বিধিঃ

কর্জ আদায়ের পরীক্ষিত আমলঃ

আপনাকে অবশ্যই নামাজি হতে হবে। এশার নামাজের পর উক্ত জায়নামাজের উপর বসে, ১১ বার দরুদ শরীফ পাঠ করতে হবে। তারপর “সূরা নাছর “ ৪১ বার পাঠ করতে হবে। তারপর আবার ১১ বার দরুদ শরীফ পাঠ করতে হবে।

এই ভাবে প্রতিনিয়ত ৪১ দিন ধরে এই দরুদ ও দোয়া পড়তে হবে। আল্লাহ পাকের রহমতে কর্জ আদায়ের ব্যবস্থা হয়ে যাবে। এই আমলটি লেখকের পরীক্ষিত। তাই আপনারা নিঃষচিন্তায় এই আমলটি করতে পারেন। আলোচনাটি সবার কাছে শেয়ার করার জন্য অনুরোধ রইলো, ধন্যবাদ।।।