কলা বশীকরণ মন্ত্র দিয়ে যা খুশি তাই করুন। Lojjatun Nesa

কলা বশীকরণ মন্ত্র দিয়ে যা খুশি তাই করুনঃ

লজ্জাতুন্নেছা পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। প্রতিবারের মতো এবারও আমরা আরেকটি নতুন বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছে আমাদের আজকের বিষয় কলা বশীকরণ মন্ত্র। আমরা আজ আপনাদের সামনে যে বশীকরণ মন্ত্র টি তুলে ধরবো এই এই বশীকরণ মন্ত্র তারা আপনার কাঙ্খিত ব্যক্তিকে আপনি খুব সহজে আপনার বশে আনতে পারবেন। আপনার কাংখিত ব্যক্তি যদি আপনার কাছ থেকে অনেক দূরে বহুদূরে এমনকি বিদেশে থাকে তাহলে সে আপনার কাছে আসতে বাধ্য। এমন অনেক জায়গায় আছেন যারা বিদেশে চলে গেছেন বাড়ির সাথে কোন প্রকার যোগাযোগ করেন না বা তিনি তাদের সাথে কোন প্রকার কথা বলেন না এমন অনেক আছে তাদের পরিবার যদি মনে করেন যে তাকে ঐ দূর দেশ হতে তাকে আবার ফিরিয়ে আনবেন তাহলে আপনি এই বশীকরণ মন্ত্র প্রয়োগ করতে পারবেন। এই বশীকরণ মন্ত্র এতটাই শক্তিশালী আপনি যদি সঠিক নিয়ম কানুন মেনে প্রয়োগ করতে পারেন তাহলে অল্প কিছুদিনের মধ্যে এসে আপনার নিকট চলে আসতে বাধ্য। আজ আমরা আপনাদের সামনে যে বশীকরণ মন্ত্র সম্পর্কে তুলে ধরবো এটা শুধুমাত্র আপনার কাংখিত ব্যক্তি যদি আপনার নিকট হতে অনেক দূরে থাকে আপনি যদি তাকে আপনার বশে আনতে চান বা আপনি যদি আপনার কাছে আনতে চান তাহলে আপনি এই বশীকরণ  মন্ত্র প্রয়োগ করতে পারবেন।

তাহলে চলুন প্রথমে বশীকরণ মন্ত্র টি দেখে নেয়া যাক-

“ওঁ নমঃ বিষ্ণু দেবায়।

ওঁ নমঃ মোহিনী রুপায়।

ওঁ নমঃ কাকিনী রূপ শিব রূপায়।

ওঁ নমঃ লক্ষী রূপ দেবী মহামায়ায়।

ঐ কদলী লক্ষী রূপায়

অমুকং বশীভূত কুরু কুরু স্বাহা।।”

প্রয়োজনীয় সামগ্রী: আপনি যদি এই বশীকরণ মন্ত্র টি প্রয়োগ করতে চান তাহলে আপনাকে বিষ্ণু ভগবানের পূজা করার যে সমস্ত প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি লাগে সেগুলি আপনি সংগ্রহ করবেন সেই সাথে আপনি একটি কলা গাছ সংগ্রহ করবেন এছাড়া আমরা যে সমস্ত নিয়ম কারণ ও প্রয়োগ পদ্ধতির কথা বলছে এগুলো আপনি ভালো ভাবে লক্ষ্য করুন।

নিয়ম কারণ ও প্রয়োগ বিধি: প্রথমে আপনাদেরকে বলবো মন্ত্রটি খুব ভালোভাবে মুখস্থ করে নেন তা না হলে মন্ত্র উচ্চারণে যে কোনো ধরনের ভুল হতে পারে যার ফলে আপনি এই মন্ত্র প্রয়োগ করে কোন প্রকার ফলাফল পাবেন না। অতএব মন্ত্রটি মুখস্ত করে নিন। মন্ত্র মুখস্থ করা হয়ে গেলে প্রতিদিন সকাল বেলায় স্নানাদি সেরে নিয়ে বিষ্নু ভগবানের পূজা করতে হবে। ধুপ দীপ জ্বালিয়ে এবং ওই ধুপ কলাগাছকে দেখিয়ে মন্ত্র পড়তে পড়তে জল ঢালতে হবে। এইভাবে আপনি 108 দিন পর্যন্ত করতে থাকবেন। আপনি যদি এরকম করতে পারেন তাহলে আপনার মনোবাঞ্ছিত ব্যক্তি যেখানে থাকুক না কেন সে অল্প দিনের মধ্যেই আপনার কাছে চলে আসবে।

আপনি যখন এই সাধনা করবেন সেই দিনগুলোতে কখনোই মদ, পেঁয়াজ, রশুন বা ওই ধরনের তামসিক খাদ্যবস্তু খাওয়া থেকে সম্পূর্ণরূপে বিরত থাকবেন। এছাড়াও ওই কলাগাছকে জীবজন্তুর হাত থেকে সম্পূর্ণরূপে বাঁচিয়ে রাখতে হবে এবং ওই স্থানটি সর্বদা পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। মন্ত্রের মধ্যে যেখানে অমুক শব্দটি রয়েছে সেই স্থানে আপনার কাংখিত ব্যাক্তির নাম বলতে হবে।

আমাদের এই বশীকরণ মন্ত্র সম্পর্কে যদি আপনাদের কোন ধরনের প্রশ্ন থাকে বা আপনার কোন মন্তব্য থাকে তাহলে আপনি আমাদেরকে ইমেইল করতে পারেন বা কমেন্ট করতে পারেন। সেই সাথে আপনি যদি আমাদের কাছ থেকে কোন ধরনের পরামর্শ নিতে চান বা আপনি যদি আমাদের সাথে কোন প্রকার সরাসরি কথা বলতে চান তাহলে আপনি আমাদের এই ওয়েবসাইটে আলাপন অপশন ব্যবহার করতে পারেন।

বি.দ্র: আপনি যদি এই বশীকরণ প্রয়োগ করতে চান তাহলে অবশ্যই প্রথমে গুরুর অনুমতি নিতে হবে।