চাকুরি ক্ষেত্রে বস বা আপনার মালিক বা মালকিনকে বশ করার উপায়

চাকুরি ক্ষেত্রে বস বা আপনার মালিক বা মালকিনকে বশ করার উপায়ঃ

হ্যালো ভিউয়ারস্ www.kokapandit.com এর পক্ষ্য থেকে আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। প্রতিবারের মতো এবারও আমরা আরও একটি নতুন বিষয় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি পদের আজকের নতুন বিষয় রাজা বশীকরণ মন্ত্র। আমরা আজ আপনাদের সামনে যে বশীকরণ মন্ত্র সম্পর্কে আলোচনা করব এই বশীকরণ মন্ত্র দিয়ে আপনি খুব সহজেই আপনার বশীভূত করতে পারবেন সে রাজা হোক বা সে বড় কোন উর্দ্ধতন কর্মচারী হোক। আপনার কর্মক্ষেত্রের যদি আপনি আপনার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে আপনার বশীভূত করতে চান তাহলে আজ আমরা এখানে যে বশীকরণ মন্ত্র সম্পর্কে বিস্তারিত বিষয় তুলে ধরব সেটি যদি আপনি সঠিক নিয়মে করতে পারেন তাহলে আপনি আপনার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে খুব সহজেই আপনার বশীভূত করতে পারবেন। শুধুমাত্র উর্দ্ধতন কর্মকর্তার ক্ষেত্রে নয় যারা বিদেশে আছেন সেখানে যে কাজ করছেন ওই জায়গায় অনেক সময় তার অনেক ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে। সে যার আন্ডারে কাজ করে থাকে সে যদি মনে করে তার দিকে একটু সুদৃষ্টি দিক তাহলে সে এক্ষেত্রে এই বশীকরণ মন্ত্র ব্যবহার করতে পারে। এই বশীকরণ মন্ত্র দ্বারা খুব সহজেই যে কোন কঠিন মনের মানুষ কে আপনি বশীভূত করতে পারবেন। তাহলে চলো আমরা প্রথমে মন্ত্রটি দেখে নেই-

“ওহম্ হ্রীং ক্লীং অমুকস্য মহীপাল।

বশ্যতে মনায় ফট্ স্বাহা।।”

প্রয়োজনীয় সামগ্রী: এই বশীকরণ মন্ত্র টি আপনি যদি প্রয়োগ করতে চান বা আপনার আয়ত্ত যদি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কিছু প্রয়োজনীয় সামগ্রী সংগ্রহ করতে হবে।  তাহলে চলুন আমরা সে সমস্ত প্রয়োজনীয় সামগ্রী গুলি দেখে নেই- কুমকুম, গোরোচনা, রোলী, আবীর, লালফুল,লাল রংএর আসন, ভীমসেনী কর্পূর, রক্ত চন্দন, কেশর, কুসুম, টগর, জায়ফল, জয়িত্রী।

নিয়ম কানুন: প্রতিবারের মতো এবারও আমরা আপনাদেরকে বলবো প্রথমে মন্ত্রটি খুব ভালোভাবে সঠিক  উচ্চারণ এবং মুখস্ত করে নিন। মন্ত্রটি যদি আপনি সঠিক ভাবে উচ্চারণ না করতে পারেন বা আপনি যদি উচ্চারণে ভুল করে থাকেন তাহলে উক্ত মন্ত্রটি প্রয়োগ করে আপনি কোন প্রকার ফলাফল পাবেন না। এজন্য অবশ্যই প্রথমে মন্ত্রটি খুব ভালো হবে মুখস্ত করে নিন। মন্ত্র টি মুখস্ত করা হয়ে গেলে তারপর মন্ত্রটি সিদ্ধ করে নিতে হবে কারণ মন্ত্রটি স্বয়ং সিদ্ধ নয়। মন্ত্রটিকে সিদ্ধ করার জন্য যেকোনো ভালো একটি দিন আপনি বেছে নিবেন। তারপর আপনি উক্ত দিন হতে 73 দিন পর্যন্ত প্রতিদিন 1000 বার করে মন্ত্রটি জপ করবেন। তাহলে মন্ত্র টি সিদ্ধ হবে। আপনি যখন মন্ত্র সিদ্ধ করবেন তখন অবশ্যই প্রতিদিন একই সময়ে আপনি করবেন। সেইসাথে মন্ত্রের মধ্যে যেখানে অমুক শব্দটি রয়েছে সেখানে আপনি আপনার কাংখিত ব্যাক্তির নাম উল্লেখ করবেন। আপনি যখন মন্ত্র সিদ্ধ করতে বসবেন তখন কুমকুম, গোরোচনা, রোলী, আবীর, লালফুল, লাল রংএর আসন এর উপর করবেন। তাহলে মন্ত্র টি সঠিক ভাবে সেদ্ধ হবে।

প্রয়োগ পদ্ধতি: মন্ত্র টি সঠিক ভাবে সিদ্ধ করা হয়ে গেলে তারপর আপনি এটি যখন প্রয়োগ করবেন তখন ভীমসেনী কর্পূর, রক্ত চন্দন, কেশর, কুসুম, টগর, জায়ফল, জয়িত্রী সমস্ত উপকরণ গুলি সমান ভাগে নিয়ে খুব ভালোভাবে পিষে নিতে হবে। পিষে নিয়ে হয়ে গেলে কাপড়ে ছেঁকে আষাঢ় মাসের রবিবার দিন পূর্ণিমা তিথি ও বিজি নক্ষত্রে চন্দ্রগ্রহণ হওয়ার সময় উপরোক্ত পেশা বস্তুগুলি লাজবন্তী তেল মিশিয়ে সমস্ত শরীরে মেখে দেহ শুকিয়ে স্বচ্ছ কাপড় পড়ে রাজদরবারে বা মন্ত্রীর কাছে বা কোন বড় অধিকারের কাছে বা কোন উর্দ্ধতন কর্মচারীর কাছে আপনি যখন যাবেন সে যতই ব্যস্ত থাকুক না কেন সে আপনার কাছে আসবে এবং আপনার বশীভূত হবে। উপরোক্ত প্রয়োগটি করার পূর্বে অবশ্যই গুরুর অনুমতি গ্রহণ করুন। অনুমতির জন্য আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ।।

বি.দ্র: অহেতুক কাউকে কোনো প্রকার কষ্ট দেয়ার উদ্দেশ্য নিয়ে এই কাজটি করতে যাবে না তাহলে আপনি নিজের ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।

{বিঃদ্রঃ- আপনি যদি লজ্জাতুন নেছা বইটি সংগ্রহ করেন, তাহলে আপনার পার্শোনাল সমস্যা গুলো আপনি নিজেই সমাধান করতে সক্ষম হবেন তাই আর দেরি না করে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে এখনি যোগাযোগ করে বইটি ক্রয় করুন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের মোবাইল এ্যডমিন আপনার কাছে বইটি পাঠিয়ে দিবে কুরিয়ার সার্ভিস এর মাধ্যমে... ধন্যবাদ}