জাগ্রত করুন তৃতীয় নয়নঃ

জাগ্রত করুন তৃতীয় নয়নঃ

আপনি আমাকে যেভাবে দেখেন কিংবা আমি আপনাকে যেভাবে দেখি এদেখার বাহিরেও একজন আরেক জনকে দেখার জন্য স্বাভাবিক ভাবে এই দেখার জন্য আরেকটি চোখের প্রয়োজন পড়ে। আপনি কি জানেন আপনার জিবনের অধিকাংশই লুকিয়ে আছে গোপনীয়তার রহস্যে। আজ আমরা সেই রহস্যের গুহায় ঢুকবো। আর জেনে নিবো কিভাবে আপনার গোপনীয়তার রহস্য জানতে পারবেন। কথাগুলো আপনার কাছে খুব কঠিন মনে হতে পারে! আপনার মতো করে যদি আমি বলি তাহলে বলবো তৃতীয় নয়নকে জাগ্রত করা সম্পর্কে বা Third eye সম্পর্কে।
আপনি আমি কেউই জানিনা যে, আমাদের মাঝে এক প্রকার শক্তি লুকিয়ে আছে। যার দ্বারা অসম্ভবকে সম্ভব করা মাত্র কিছু সময়ের ব্যপার। কিছু মানুষ রয়েছে যার চোখ বন্ধ বা রাতের গুড গুডে অন্ধকারে দেখতে পায়, এদের মধ্যে যে প্রকার শক্তি কাজ করে তার একমাত্র উৎস হলো তার তৃতীয় নয়ন। তা কোন কোন সভ্যতায় জ্ঞানের চোখ নামেও পরিচিত ছিলো। যেসকল ব্যক্তি অন্যের চোখের দিক তাকিয়ে তার ভবিষ্যৎ বলতে পারে ও অন্যের চোখের দিক তাকিয়ে তার মনকে পড়তে পারে সেসকল ব্যক্তি অবশ্যই সৃষ্টিকর্তার আর্শিবাত পুষ্ট। অর্থ্যাৎ তাদের তৃতীয় নয়ন বা ষষ্ঠ ইন্দ্রীয় সদাই জাগ্রত। তবে আপনারা যাহারা এখন বিশ্বাস করতে পারছেন না। তারা জেনে রাখুন থার্ড আই নামে এক প্রকার শক্তি চিরকাল ধরে ত্রিভূবনে তার শক্তি দেখিয়ে গেছেন। এখনো দেখাচ্ছে। হলিউডের ছবির যেসব কাল্পিনিক দৃশ্য দেখে থাকি সেগুলো কখনো বাস্তবে রুপান্তরিত করা সম্ভব নয় শুধু একমাত্র থার্ড আই এর মাধ্যমে করাই সম্ভব। সত্যিকার অর্থে এর অনেক অস্তিত্ব রয়েছে ও তার বৈজ্ঞানিক ব্যখ্যা ও রয়েছে। তাহলে আর দেরি না করে আমরা তৃতীয় নয়নের জ্ঞানের গভীরে ডুব দেই। বেশ কিছু ক্ষমতার সন্যিবেশিত রুপকে আমরা তৃতীয় নয়নের শক্তি বলেই মানি। তৃতীয় নয়ন জাগ্রত করে অনেক অলৌকিক কাজ সাধন করা সম্ভব। তবে সে ক্ষেত্রে আপনার প্রয়োজন হবে তিক্ষ্ন মনোসংযোগ, তৃতীয় নয়ন উচ্চতর ও সচেতনার পথ হিসেবে পরিচিত। পূর্ব পশ্চিম ও আধ্যাত্মিক ঐতির্হ্যে তৃতীয় নয়ন ভেতরের চোখ নামেও পরিচিত। তৃতীয় চক্ষুকে সাধনা, ধ্যান, দৃঢ় মনোসংযোগ, সুশিল চিন্তা, আত্ম মনোবল, প্রচুর ধৌর্য্য বা ত্রাটক দ্বারাই জাগ্রত করা যায়। যারা তাদের তৃতীয় নয়নকে জাগ্রত বা উন্নয়ন করেছে। তারা শিরচ নামে পরিচিত। হিন্দু ধর্ম ও বৌদ্ধ ধর্মের জ্ঞান মুক্তির উপায় হিসেবে এর ব্যবহার করা হয়ে থাকে, যা জ্ঞান চক্ষু হিসাবে উল্লেখ করা হয়। আমি প্রথমেই বলেছিলাম আপনার জিবনের অধিকাংশই গোপনীয়তায় লুকিয়ে রয়েছে। সেই গোপনীয়তা জানার জন্যই আপনাকে তৃতীয় নয়নের আধ্যাত্মিক ক্ষমতা অর্জন করা দরকার। আর যদি আপনি তৃতীয় চক্ষু কে জাগ্রত বা উন্নয়ন করতে চান! তবে আপনার হৃদয়কে পরিষ্কার করতে হবে। কারন তৃতীয় নয়ন শক্তি সঞ্চয়ের অধিকাংশই জ্বালানী হিসাবে কাজ করে পরিষ্কার হৃদয় বা মন কিংবা সুশিল চিন্তা শক্তি হতে। এখন তাহলে জেনে নেয়া যাক এটি মাধ্যমে কি কি কাজ করা সম্ভব। অর্থ্যাৎ আমরা তৃতীয় নয়নের শক্তির দ্বারা কি কি কাজ করতে পারি বা পারবো। তৃতীয় নয়ন নিয়ে বিজ্ঞানের যে শাখা টি কাজ করে যাচ্ছে। তা হচ্ছে প্যারাসাইকোলজি। তৃতীয় নয়নের শক্তিকে তারা কয়েক টি ভাগে বিভক্ত করেছে বিশ্লেষনের জন্য। এই সকল বিজ্ঞানীরা তৃতীয় নয়নের অলৌকিক বা দূরদর্ষী ক্ষমতা নিয়ে পর্যালোচনা করেন। তবে তা পুরোপুরি ভাবে বিজ্ঞান সম্মত। কয়েক টি ভাগের একটি ভাগ হচ্ছে টেলিপ্যথি, অর্থ্যাৎ মানুষের মনের কথা জানা। যারা সত্যি সত্যিই অন্যের আত্মা দেখতে পায় ও অন্যের মনের কথা বলতে পারে অন্যের চোখের দিকে তাকিয়ে তার মনকে পড়তে পারে কিংবা নিজের চিন্তা ভাবনা গুলো অন্যের মস্তিষ্কে ট্রান্সফার করতে পারে অন্যকে নাজানিয়ে, কাউকে দেখার আগেই তার সম্পর্কে ভবিষ্যৎ বলতে পারা ও তার বর্তমান সম্পর্কে বাস্তব ধারনা প্রকাশ করা। তারই আর একটি বিষয় হচ্ছে যেকোন বস্তু বা ধাতব পদার্থকে একবার দেখে তার উপর নিজের শক্তি প্রয়োগ করা, কোন ধরনের স্পর্শ ছাড়াই সেই বস্তুকে এক স্থান হতে অন্য স্থানে ট্রান্সফার করা ইত্যাদি। সবচেয়ে মজার যে বিষয় তা হচ্ছে একই ব্যক্তি কোন স্থানে ধ্যনে মগ্ন থাকা অবস্থায় আবার সেই ব্যক্তিই অন্য স্থানে বসবাস করা কিংবা তার সকল কিছু বা ব্যক্তি জিবন চলমান থাকা। এই বিষয়টি পরে প্যারালাল ইউনিভার্সের মধ্যে। আমি আর ঐ দিকে না গিয়ে তৃতীয় নয়ন নিয়ে আলোচনা করি। তৃতীয় নয়নের মাধ্যমে আপনি অনেক ধরনের অসম্ভব কাজ সম্ভব করতে পারবেন।
যে কাউকে নিজের মনের কথা গুলো আপনি বলতে পারবেন অন্যের মনের কাছে।
যে কাউকে ভালবাসার কথা গুলো বলতে পারবেন খুব সহজে।
আপনার শত্রুকে আপনি মনের টানে সদরে আনতে পারবেন।
যেকোন মেয়ে বা প্রেমিকাকে কিংবা আপনার পছন্দের মানুষকে আপনার মনের কথাগুলো বলতে পারবেন এর মাধ্যমে।
সবারে কাছে প্রিয় ব্যক্তি হিসেবে সারাজিবন কাটিয়ে দিতে পারবেন।
সবচেয়ে ফলপ্রদ বিষয়টি হচ্ছে অনেক অর্থ সম্পদের মালিক হতে পারবেন।
আপনার ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আপনি নিজেই অবগত থাকবেন।
অন্যের ভবিষ্যৎ জানতে পারবেন বা বলে দিতে পারবেন।
যেকোন ব্যক্তিকে নিজের কাছে টেনে আনতে পারবেন।
বিভিন্ন রোগ হতে মুক্তি পেতে সক্ষম হবেন।
ইত্যাদি অনেক অসম্ভব কাজ করা সম্ভব করতে পারবেন।
তৃতীয় নয়নের শক্তি অজর্নের জন্য আপনি যদি ত্রাটক প্রশিক্ষন নিয়ে থাকেন তাহলে আপনার ততই সুবিধা হবে। ত্রাটক বিদ্যার অনেক অংশে রয়েছে তৃতীয় নেত্রের অধ্যায়। তাই আমি আপনাকে বলতে চাই ত্রাটক হচ্ছে তৃতীয় নয়নের কাছে প্রবেশ করার এই সফল কামী রাস্তা। শুধু ত্রাটক বিদ্যার দ্বারা এই কাজ সম্পন্ন হবে তা কিন্তু নয়। আরো অনেক ধরনের উপায় রয়েছে তবে বর্তমান বিশ্বে ত্রাটক তৃতীয় নেত্রের জন্য খুবই ফল দায়ক। আপনারা চাইলে আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকেও ত্রাটক প্রশিক্ষন নিতে পারেন। ত্রাটক প্রশিক্ষনের জন্য আমাদের প্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন যাবৎ কাজ করে চলছে। লজ্জাতুন নেছা দিচ্ছে ত্রাটক প্রশিক্ষনে বিশেষ মূল্য ছাড়।

{বিঃদ্রঃ- আপনি যদি লজ্জাতুন নেছা বইটি সংগ্রহ করেন, তাহলে আপনার পার্শোনাল সমস্যা গুলো আপনি নিজেই সমাধান করতে সক্ষম হবেন তাই আর দেরি না করে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে এখনি যোগাযোগ করে বইটি ক্রয় করুন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের মোবাইল এ্যডমিন আপনার কাছে বইটি পাঠিয়ে দিবে কুরিয়ার সার্ভিস এর মাধ্যমে... ধন্যবাদ}