জুয়াতে জিতার সহজ মন্ত্র

জুয়াতে জিতার সহজ মন্ত্রঃ

হ্যালো বন্ধুগন আপনাদের সকলের অনুরোধের কারণে আজকে একটি সহজতর মন্ত্র আপনাদের সামনে উপস্থাপন করেতে চলেছি। আসলে মন্ত্র প্রয়োগ বর্তমান সমাজের মানুষের কাছে খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। তাই আমি জুয়াতে জিতবার সহজ প্রয়োগ বিধি মন্ত্র নিয়ে হাজির হয়েছি। ইতিপূর্বে আমরা জুয়াতে বা লটারীতে জিতার তিন টি আলোচনা করেছি। জুয়া ও লটারীতে সফল হওয়ার আজকেই শেষ আলোচনা। তাই আপনারা আমাদের এই মোট চারটি আলোচনা থেকেই বেছে নিন আপনার সাধ্যতম প্রয়োগ বিধি। এই চারটি আলোচনার মধ্যে আপনার কাছে যে প্রয়োগ টি খুব সহজ বলে মনে হবে কিংবা আপনি যেটি কাজে লাগাতে সক্ষম হবেন ঠিক সেটিই আপনি বেছে নিয়ে প্রয়োগ করবেন। এক সঙ্গে চারটি প্রয়োগ বা ব্যবহার করবেন না। অন্যথায় আপনার ক্ষতি হতে পারে! বিশেষ করে প্রবাসী ভাই ও বোনেদের উদ্দেশ্যে বলছি আপনারা যদি এই প্রয়োগের ভিতর একটিও করতে অক্ষম হয়ে পড়েন কিংবা এই চারটি আলোচনার ভিতর থেকে বেছে নিতে পারছেন না যে, কোনটি প্রয়োগ করবো বা প্রয়োগে আপনি অক্ষম কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়বেন এমন যদি কখনো হয়, তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। আমাদের প্রতিষ্ঠান থেকে আপনার সমস্যা ‍সমাধান করার চেষ্টা করবে।
চলুন তাহলে আজকের আলোচনায় ফিরে আসি।
“জুয়াতে জিতার সহজ মন্ত্র”

মন্ত্রঃ-
ওঁ নমো আদেশ কামরু কামাখ্যা দেবী,
অগ পহুরু ভুডঙ্গা পহুরু লোহে শরীর
আবত হাথ তোড়ু পাঁও তোড়ু
সহায় হনুমান বীর।
উঠ অব নরসিংহ বীর,
তেরো সোলর সও শৃঙ্গার-
মেরী পাঠ লগে নাহি তো
বীর হনুমন্ত লজানে তু লেহ পূজা,
পান, সুপারী নারিয়ল সিন্দুর,
অপনী দেহু সবল মোহী পর্‌দেহ
ভক্তি গুরু কী শক্তি,
ফুঁরো মন্ত্র ঈশ্বরী বাচা।

প্রয়োগ বিধিঃ- এই মন্ত্র প্রত্যহ ১০৮ বার করে ৪১ দিন জপ করতে হবে। আরম্ভ করতে হবে কোন মঙ্গলবার দিন। মঙ্গলবার ভিন্ন অন্য কোন দিন মন্ত্র জপ আরম্ভ করলে কোন ফল হবে না।
প্রথমে গেরুয়া চৌকা পাতবেন, লাল ল্যাঙ্গট পরবেন। ধূপ-দ্বীপ জ্বেলে লাড্ডুর ভোগ দেবেন। পরে ২১ বার উক্ত মন্ত্র জপ করে লাড্ডু খাবেন। সেইদিন জুয়ায় যত দান খেলবেন অবশ্যই জিৎ হবে। তবে জুয়াতে অধিক ধ্যান দেবেন না। সংসার এর প্রচন্ড ক্ষতি হবার সম্ভবনা রয়েছে।
বিঃদ্রঃ- এই প্রয়োগ টি ব্যবহার করার পূর্বে অবশ্যই একবার আমাদের যোগাযোগ পেইজে গিয়ে যোগাযোগ করুন। মনে রাখবেন প্রয়োগ টি ব্যবহার করতে হলে গুরু অনুমতি নিতে হবে। নতুবা মন্ত্রটি ১০৮ বার কিংবা ১ লক্ষ বার জপ করেও কোন লাভ নাই। তাই কোন সিদ্ধ গুরুর কাছে অনুমতি নিতে হবে। ধন্যবাদ।