তাবিজ  লেখার নিয়মাবলী

তাবিজ  লেখার নিয়মাবলী ও করণীয়ঃ

সুপ্রিয় ভিজিটর বন্ধুগণ!

দুনিয়ার যাবতীয় কাজ কর্মের জন্য একটি নিয়ম পদ্ধতি রহিয়াছে। সেই নিয়ম অনুযায়ী কাজকর্ম সমাধা করিলে নিঃসন্দেহে সফলতা লাভ করা যায়। তদ্রুপ আমলিয়াত ও তাবিজাতের জন্যও কিছু নিয়মাবলী রহিয়াছে। উহা যথাযথভাবে পালন না করিলে আমল ও তাবিজ দ্বারা ফায়দা পাওয়া যায় না।। সুতরাং এত্র নিয়মানুযায়ী আমল করিলে এবং তাবিজ লিখিলে নিশ্চয়ই আল্লাহ পাকের অসীম রহমতে কাংখিত সুফল পাওয়া যাইবে।।

এই কথাও সত্য যে, আমল ও তাবিজের এলেমের সহিত সাত ছেতরা, (তারকা) তাহাদের কক্ষপথ এবং তাহাদের আবর্তনের সময়ের ঘনিষ্ট সম্পর্ক বিদ্যমান রহিয়াছে। এতএব যে কোন আমল বা তাবিজ লিখিবার পূর্বে এত্র তিনটি বিষয়ের প্রতি যথাযথভাবে লক্ষ্য রাখিতে হইবে। তাহা হইলেই কাংখিত ফলাফল লাভ করা যাইবে।।

আমলকারীর পালনীয় নিয়মাবলীঃ

প্রথম নিয়মঃ আমলকারীকে হালাল রুজী কামাই করিতে হইবে ও হালাল খানা খাইতে হইবে।। সদা সত্য কথা বলিতে হইবে। মিথ্যা বর্জন করিতে হইবে। আর নেক আমল করিতে হইবে। ইহা অবশ্য পালনীয়।

দ্বিতীয় নিয়মঃ আমল পাঠ করিবার সময় এবং তাবিজ লিখিবার সময় নিয়াত দুরুস্ত রাখিতে হইবে। শয়তানের ধোকা হইতে বাঁচিয়া থাকিতে হইবে এবং আল্লাহ তাআ’লার মন আকৃষ্ট রাখিতে হইবে।

তৃতীয় নিয়মঃ যেই সময় আমল পাঠ করিবে অথবা তাবিজ লিখিবে, তখন সেতারাসহ কক্ষপথ ও ঘন্টার দিকে বিশেষভাবে খেয়াল রাখিতে হইবে।

চতুর্থ নিয়মঃ প্রেম, মহব্বৎ ও ভালবাসা জনিত বিষয় আমল করিলে অথবা তাবিজ লিখিলে উহা চন্দ্রমাসের প্রথম অর্দ্ধে বৃহস্পতিবার কিংবা শুক্রবার দিনের বেলা  হইতে হইবে।

পঞ্চম নিয়মঃ শত্রুতা সৃষ্টির জন্য আমল করিলে কিংবা তাবিজ লিখিলে উহা চন্দ্রমাসের শেষ অর্দ্ধে শনিবার অথবা মঙ্গলবার যোহল বা মিররীখ সেতারার সময় হইতে হইবে।

ষষ্ঠ নিয়মঃ আমল পাঠ করিবার জন্য এবং তাবিজ লিখিবার জন্য একটি স্থান নির্দিষ্ট করিয়া লইতে হইবে।। এই প্রকারে জায়নামাজও নির্দিষ্ট করিয়া লইতে হইবে।

প্রকাশ থাকে যে, আমলকারীকে অবশ্যই উক্ত নিয়মসমূহ পালন করিতে হইবে। নতুবা সুফল লাভ হইবে না। সুপ্রিয় ভিজিটরগণ আশা করি আপনারা তাবিজ লেখার বিষয়টি বুঝতে পেরেছেন।। সবাইকে এই বিষয়টি শেয়ার করুন ও আমাদের সাহায্য করুন।। অনেকেই রয়েছে যারা আমাদেরকে ফোন বা ইমেইল করে বলে, ভাই বা দাদা এই নকশাটি কিভাবে লেখবো, কাজ হবে কিনা  অনুমতি নিতে হবে কার কাছ কাছ থেকে কে অনুমতি দিবে।। আসলে এই কয়েকটি নিয়ম মেনে চলতে পারলে, আল্লাহ’তায়ালা অবশ্যই আপনার উদ্দেশ্য কবুল করে নিবেন এবং আপনারা সুফল লাভ করবেন।।