তেলপড়া দিয়ে যেকোন নারী ও পুরুষকে বশ করুন

তেলপড়া দিয়ে যেকোন নারী ও পুরুষকে বশ করুনঃ

হ্যালো ভিউয়ারস্ লজ্জাতুন নেছা.কম এর পক্ষ থেকে আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। আজ আমরা আপনাদেরকে বলবো ছেলে অথবা মেয়ে পাগল করার তেল পড়া সম্পর্কে।  যে বিষয়টি সম্পর্কে আমরা আলোচনা করতে যাচ্ছি আসলে এটি হচ্ছে একটি বশীকরণ।  এই বশীকরণ আপনি তখন ঐ ব্যবহার করবেন যদি আপনি কাউকে ভালোবেসে থাকেন তাকে যদি আপনি আপনার করে পেতে চাইছেন তাহলে আপনি এটি ব্যবহার করতে পারেন।  এই বশীকরণ টি ছেলে মেয়ে উভয়ই করতে পারবে।  শুধুমাত্র যে এই বশীকরণ টিপ প্রেম বা ভালবাসার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে তা কিন্তু নয়।  এই বশীকরণ কি আপনি কারণ মধ্যে যদি কোন প্রকার দ্বন্দ্ব বা মনোমালিন্য তৈরি হয়ে থাকে সেক্ষেত্রে আপনি এটি ব্যবহার করতে পারবেন।  তবে একটি কথা আপনাদের কে জানিয়ে রাখি এই বশীকরণ করার ক্ষেত্রে অবশ্যই আপনারা আপনাদের মনে কোন অসৎ উদ্দেশ্য রাখবেন না।  আমাদের মধ্যে এমন অনেকেই আছেন যারা তাদের উদ্দেশ্য কে হাসিল করার জন্য এই সমস্ত পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকে।  তাদেরকে উদ্দেশ্য করে বলছি আপনারা এই সমস্ত থেকে দূরে থাকুন।  আপনি যদি কোন অসৎ উদ্দেশ্যকে সফল করার জন্য এটি প্রয়োগ করে থাকেন তাহলে সব থেকেবড় ক্ষতি হবে আপনার নিজের।  এজন্য আপনি যদি সব উদ্দেশ্য নিয়ে করতে চান তাহলে আপনি এই পদ্ধতি ব্যবহার করতে পারেন।  বর্তমান সময়ের দিকে লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে আমাদের মধ্যে সবথেকে শত্রুতা হিংসা এগুলো বেশি।  অনেকেই আছেন প্রতিশোধ নেয়ার জন্য বা অনেকেই আছেন এরকম যে একটি ছেলে একটি মেয়েকে ভালোবাসে তাকে ব্যবহার করার জন্য এই পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকে।  ছেলেটি যখন মেয়েটি কে ব্যবহার করে তারপর সেই মেয়েটিকে ছেড়ে দেয়।  এই পদ্ধতি ব্যবহার করে যদি আপনারা এই ধরনের উদ্দেশ্য করতে চান তাহলে আপনারা এই বশীকরণ হতে বিরত থাকুন তা না হলে আপনারা নিজেরাই বিপদে পড়বেন।  এর জন্য আমরা বারবার বলছি আপনারা ভালো কোনো উদ্দেশ্য নিয়ে আপনার মনের যদি কোন সৎ উদ্দেশ্য থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার এই পদ্ধতি ব্যবহারকরুন।  এখানে যে বশীকরণ সম্পর্কে আমি আপনাদেরকে বলতে চাচ্ছি সেটা হচ্ছে একটি মন্ত্র।  চলুন আমরা প্রথমে এই মন্ত্রটি দেখে নেই…. 

মন্ত্রটি হচ্ছে এই-

“নয়ন বন্ধি সাড়ে তিন হাত শরীর বন্ধি,
অমুকের মন বন্ধি নিত্যা নিগম বন্ধি
আমি ছাড়া তুই যদি অন্য দিকে চাস,
মা ফাতেমার মাথা খাস।
হযরত আলীর মাথা খাস।
ছাড় ছাড় ছাড়
বাপ মার গৃহ ছাড়
আমারে ছাড়িয়া যদি পিছন ফেলাস পা
দোহাই পয়গম্বর আল্লাহ  মস্তক খা।
পার হক্কে  লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ।।”
 
প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র:  এই বশীকরণ টি করতে হলে আপনাকে সরিষার তেল সংগ্রহ করতে হবে এবং আপনি যাকে বশীকরণ করতে চাইছেন তার নাম সংগ্রহ করতে হবে।
নিয়ম কানুন: প্রত্যেকবারের মতো আমি এবারও আপনাদেরকে বলবো অবশ্যই মন্ত্রটি প্রথমে আপনারা খুব সুন্দর ভাবে মুখস্ত করে নিন।  মন্ত্রটি যদি খুব ভালোভাবে মুখস্থ করতে পারেন তাহলে আপনাদের উচ্চারণের ক্ষেত্রে কোন প্রকার ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে না যার ফলে এটি প্রয়োগ করে আপনারা খুব ভালোভাবে তার ফলাফল পেতে পারেন। মন্ত্রটি ভালোভাবে মুখস্থ করে নেয়া হয়ে গেলে অবশ্যই মন্ত্রটিকে আপনাদেরকে সিদ্ধ করে নিতে হবে তার কারণ হচ্ছে এই মন্ত্রটি স্বয়ং সিদ্ধ মন্ত্র নয়।  এই মন্ত্রটি কে সিদ্ধ করে নেওয়ার জন্য আপনারা যেকোনো রবিবার দিন ৮৭২ বার জব করবেন।  তাহলে মন্ত্র টি সিদ্ধ হয়ে যাবে।
 
 প্রয়োগ বিধি: মন্ত্রটি প্রয়োগ করার জন্য প্রথমে একটি বার্টির মধ্যে তেল নিয়ে নিবেন। তারপর আপনি মন্ত্রটি ২১ বার পাঠ করে এই তেলের উপর ফু দিবেন।  তারপর আপনি ওই তেল আপনার নিজের হাতে মুখে এবং সমস্ত শরীরে মেখে আপনি যাকে বশ করতে চাইছেন তার সামনে আপনাকে যেতে হবে।  তার সামনে যাওয়ার পর আপনি যাকে বশীকরণ করতে চাইছেন সে যদি আপনার দিকে একবার তাকায় তাহলে সে আপনার বাধ্যগত হয়ে যাবে।  এই বশীকরণ ঠিক করার জন্য আপনারা যে কোন রবিবার বা মঙ্গলবার বেছে নেবেন।
 
বি. দ্র.:  সবশেষে একটি কথা বলে রাখি কখনোই কোনো খারাপ উদ্দেশ্য নিয়ে এই কাজটি করতে যাবেন না।  আপনারা এই কাজটি অবশ্যই নিজ দায়িত্বে করবেন। যদি কেউ আমাদের মাধ্যমে কাজ করাতে চায় তাহলে আমাদের যোগাযোগ পেইজে দিয়ে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ।।
(প্রিয় ভিজিটরগণ এই মন্ত্র টি হয়তো আপনারা দেখেই বুঝতে পেরেছেন যে, কত সহজ ও সাবলীল যে কেউ এই মন্ত্রটি কাজে লাগাতে পারবেন। এই মন্ত্রটি সংগ্রহ করা হয়েছে আমাদের প্রাপ্ত বয়স্কা তান্ত্রিক মহাদয়ের একটি পুস্তক থেকে- (লোক চিকিৎসায় তন্ত্র-মন্ত্র) বই থেকে। আপনারা চাইলে এই বইটি ক্রয় করে নিজের কাজ গুলি নিজে নিজেই করতে পারবেন। আমরা আপনাদের অনুমতি প্রদান করবো ও প্রতিটি কাজের পূর্বে সহযোগীতা করবো। ধন্যবাদ।)