পরস্পরের মধ্যে প্রেম ভালবাসা বৃদ্ধির টোটকা

পরস্পরের মধ্যে প্রেম ভালবাসা বৃদ্ধির টোটকাঃ

লজ্জাতুন নেছা.কম এর পক্ষ্য থেকে আপনাদের সবাইকে জানাচ্ছি আন্তরিক শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন। প্রতিবারের মত  লজ্জাতুন নেছা এবার আপনাদের সামনে নতুন আরেকটি বিষয় নিয়ে হাজির হয়েছে আজকের নতুন বিষয়ঃ স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রেম বৃদ্ধি করার টোটকা।  আজ আমরা আপনাদের সামনে যে টোটকা উপস্থাপন করছি এই টোটকা 200 বছরের পুরাতন কোকা পন্ডিতের লজ্জাতুন নেছা পুস্তক থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে।  যদি কোন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়ে থাকে বা স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে যদি ভালোবাসা না থাকে বা স্বামী-স্ত্রীকে দেখতে পারে না বা স্ত্রী স্বামীকে দেখতে পারে না এরকম যদি কোন সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে আজ আমরা যে টোটকা টি আপনাদের সামনে দেখাচ্ছি এই টোটকা টি ব্যবহার করে পুনরায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রেম বৃদ্ধি করা যাবে। যদি কোন প্রেমিক প্রেমিকার মধ্যে প্রেম ভালবাসার অভাব দেখা দেয় তাহলেও এই টোটকাটি প্রয়োগ করতে পারবেন তাহলে প্রেম আরোও মধুর হবে। আমরা যে সমস্ত টোটকা তন্ত্র মন্ত্র তন্ত্র তাবিজ তদবির ইত্যাদি বিষয়ে আপনাদের সামনে তুলে ধরছি তা কখনোই আপনি খারাপ কোন কাজের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করবেন না।  আজ আমরা আপনাদের সামনে তুলে ধরছি এই টোটকা টি যদি আপনি  প্রয়োগ করতে চান তাহলে আমরা যে সমস্ত নিয়ম কানুন আপনাদের সামনে তুলে ধরবো সেই নিয়ম কানুন আপনি সঠিকভাবে প্রয়োগ করুন তাহলে আপনি সম্পূর্ণরূপে ফলাফল পেয়ে যাবেন।

তাহলে চলুন এই টোটকা সম্পর্কে যাবতীয় বিষয় জেনে নেয়া যাক-

প্রয়োজনীয় উপকরনঃ আপনি যদি এই টোটকা প্রয়োগ করতে চান তাহলে আপনাকে কিছু প্রয়োজনীয় উপকরন সমুহ সংগ্রহ করতে হবে চলুন সে সম্পর্কে বিস্তারিত বিষয় জেনে নেয়া যাক- ছোট কালো  বিউলি ডাল, মেহেদী।

নিয়ম কারণ ও প্রয়োগ বিধি: আপনি যদি এই ডট কাপুরের করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে প্রথমে প্রয়োজনীয় উপকরন সমুহ সংগ্রহ করে নিতে হবে। সংগ্রহ করা হয়ে গেলে আপনি যখন এই টোটকা  প্রয়োগ করবেন তখন আপনি নিজে পাক পবিত্রতা বজায় রাখবেন। তারপর ছোট কাল বিউলি ডালে মেহেদি দিয়ে যেদিকে বর বা বধূ ঘর সেদিকে ফেলতে হবে।  এর ফলে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে পুনরায় প্রেম বৃদ্ধি পাবে।  দুঃখ কষ্ট থাকবে না।  এই প্রক্রিয়া যেখানে বিয়ে হয়েছে সেখান থেকে করতে হবে।

বি.দ্র: আপনি কখনই কোন প্রকার এসমস্ত টোটকা বা তাবিজ তন্ত্র মন্ত্র কখনই খারাপ কোন কাজের উদ্দেশ্যে ব্যবহার করবেন না। লজ্জাতুন্নেছা যে সকল যন্ত্র মন্ত্র তন্ত্র তাবিজ তদবির ইত্যাদি বিভিন্ন কার্যসিদ্ধির জন্য তুলে ধরা হচ্ছে সেগুলো যদি আপনি সঠিকভাবে তান্ত্রিক গুরু অথবা সাধকের নির্দেশ ব্যতীত প্রয়োগ না করে থাকেন যার ফলে কোন ধরনের ব্যাঘাত ঘটে তাহলে তার জন্য লজ্জাতুন্নেছা কোনভাবেই দায়ী থাকবে না।