প্রিয়তমা বা স্ত্রীকে সারাজিবন আপন করে রাখার উপায়

প্রিয়তমা বা স্ত্রীকে সারাজিবন আপন করে রাখার উপায়ঃ

সুপ্রিয় ভিজিটরগণ লজ্জাতুন নেছা ওয়েব সাইটের পক্ষ্য থেকে আপনাদের সকলকে জানাই আন্তরিক সুভেচ্ছা। আমরা সবাই চাই নিজের মনের মানুষটি সারাজিবন আমাদের ভালবাসুক ও কাছে থাকুক।  কিন্তু অনেক সময় হয়তো বিভিন্ন কাজে বা চাকুরীর জন্য নিজ বাড়ি হতে বিভিন্ন জায়গায় যেতে হয় আমাদেরকে। ঠিক সেই সময় আমরা বিপদে পড়ি। দীর্ঘদিন বাড়ির বাহিরে থাকার কারণে, আপনার পছন্দের ব্যক্তির সাথে কিংবা আপনার স্ত্রীর সাথে হয়তো কোন অসৎ উদ্দেশ্যের ভন্ড লোক আপনার স্ত্রী বা প্রেমিকার ক্ষতি করার চেষ্টায় থাকে। যেমন তাকে বশ করে তার প্রতি আকৃষ্ট করে বসে আর তখনি আপনি বিপদে পড়ে যান। এভাবে যেন কেউ আপনার স্ত্রী কিংবা প্রেমিকার ক্ষতি করতে না পারে শত চেষ্টার পরও যেন আপনার স্ত্রী বা প্রেমিকার মনকে তারা বশ না করতে পারে। এর জন্যই আমাদের আজকের আলোচনা। আপনি যদি কখনো দূরে যান বা দেশের বাহিরে যান তাহলে আপনার প্রেমিকার উপরে নিচের মন্ত্রটি প্রয়োগ করুন। আর যদি আপনার স্ত্রীকে ছেড়ে বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে কাজ করেন তাহলেও নিচের মন্ত্রটি ব্যবহার করুন নয়তো ক্ষতি হওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি। এই মন্ত্রটি অনেক ফলদায়ক ও কার্য্যকর।

প্রিয়তমা ও স্ত্রী বশিকরন মন্ত্রঃ

“প্রদীপে রহিয়া তেল

জ্বল জ্বল করে,

জ্বলিতেছে জ্যোতি-স্বরুপ

তাহার ভিতরে।

জ্বলুক অগ্নি

জ্যোতির আজ্ঞায়,

আমার স্ত্রীর নাম

পড়ুক তথায়।

চঞ্চলা সে যেন

সদায় থাকে অস্থির,

আমার জন্যে এখন

হয় সে অধীর।

কার আজ্ঞে?

হাড়ির ঝি চন্ডীর আজ্ঞে

কামাক্ষ্যা মায়ের আজ্ঞে।”

প্রয়োগ বিধিঃ- এই মন্ত্রটি ৮০ বার পাঠ করে খাঁটি সরিষার তেলকে মন্ত্রপূত করতে হবে এবং উক্ত তেল স্ত্রীর শরীরে মাখিয়ে দিতে হবে।

উক্ত প্রয়োগ করার পূর্বে অবশ্যই গুরুর অনুমতি গ্রহণ করতে হবে। অনুমতির জন্য যোগাযোগ করুন। এই মন্ত্রটি আরোও অনেক ক্ষেত্রে ব্যবহার করা যাবে। যেমন আপনার স্ত্রী যদি আপনার সাথে সবসময় খিটমিটে ব্যবহার করে থাকে ঠিক মতো আপনাকে সময় দেয়না ও অন্যের সাথে ফোনে কথা বলে সবসময় আপনার অবাধ্য হয়ে চলাফেরা করে। তাহলে এই মন্ত্রটি ব্যবহার করুন। ধন্যবাদ।

(প্রিয় ভিজিটরগণ এই মন্ত্র টি হয়তো আপনারা দেখেই বুঝতে পেরেছেন যে, কত সহজ ও সাবলীল যে কেউ এই মন্ত্রটি কাজে লাগাতে পারবেন। এই মন্ত্রটি সংগ্রহ করা হয়েছে আমাদের প্রাপ্ত বয়স্কা তান্ত্রিক মহাদয়ের একটি পুস্তক থেকে- (লোক চিকিৎসায় তন্ত্র-মন্ত্র) বই থেকে। আপনারা চাইলে এই বইটি ক্রয় করে নিজের কাজ গুলি নিজে নিজেই করতে পারবেন। আমরা আপনাদের অনুমতি প্রদান করবো ও প্রতিটি কাজের পূর্বে সহযোগীতা করবো। ধন্যবাদ।)