পড়া লেখায় স্মরণ শক্তি বৃদ্ধির উপায়

পড়া লেখায় স্মরণ শক্তি বৃদ্ধির উপায়ঃ

হ্যালো বন্ধুরা আমাদের আজকের আলোচনা আপনারা হয়তোবা টাইটেল দেখেই বুঝতে পেরেছন। তবুও আমি আর এক বার বলতেছি। আজকের বিষয় হচ্ছে পরিক্ষায় সফলতা ও পড়া-লেখায় মনোযোগী হওয়া সম্পর্কে। অনেকেই আমাদের কে মেইল করে বলেছেন পরিক্ষায় ভালো ফলাফল ও পড়ালেখায় মনোযোগী হওয়া এবং একটি বিষয় পড়ে তা যেন কিছু দিন পর মাথা থেকে বাহিরে চলে না যায়। এরকম একটি আলোচনা করতে। তাই আজকের এই বিষয়।
আপনি যদি পড়া লেখায় ভালো হতে চান ও পরিক্ষায় ভালো ফলাফল করতে চান তাহলে এই প্রয়োগটি করতে পারেন। যেসব ছাত্র/ছাত্রীরা পড়া লেখায় বড্ড অমনোযোগী কিছুতেই পড়া লেখা ভালোবাসে বা কিংবা বাবা-মাকে পড়া লেখা দেখিয়ে উঠে পড়ে কিন্তু মন দিয়ে তা করে না। অথবা যাদের স্মরণ শক্তি অত্যন্ত দূর্বল, কিংবা যেসকল পিতা মাতা তাদের ছেলে মেয়েদের বিদ্যার প্রভাব বিস্তার করতে চান তাদের জন্য এই মহা মূল্যবান মন্ত্র ও যন্ত্রটি প্রয়োগ করে দেখতে পারেন। আশা করি অনেক সুফল পাবেন।
প্রয়োগ বিধিঃ- এর জন্য যেকোন সোমবার সকালে সাদা রঙের কাপড় পরিধান করে, উত্তর দিকে মুখ করে বসবেন। তারপর আপনার সামনে আগরবাতি ও প্রদ্বীপ জ্বালাবেন। এর পর একটি সাদা কাগজে অষ্টখন্দার কালি দিয়ে, ডালিম গাছের একটি চিকন ডালকে কলম বানিয়ে সেই কলম দিয়ে এই যন্ত্রটি লিখবেন। অষ্টখন্দার কালী আপনি যেকোন দশকর্মার দোকান থেকে কিনে নিতে পারবেন। এখন ডালিম গাছের কলম ও যেকোন বাজারে পাওয়া যায় আর যদি না পান তবে যেকোন ডালিম গাছের একটি ডাল দিয়ে এই কলম টি বানাতে পারবেন। তারপর এই যন্ত্র টি আপনি লিখতে শুরু করবেন। তবে যন্ত্রটি লিখতে লিখতে আপনাকে এইটি মন্ত্র পাঠ করতে হবে। একমুহূর্তেও থামা চলবেনা। যতক্ষণ ধরে যন্ত্রটি প্রস্তুত করবেন ততক্ষন এই মন্ত্রটি পাঠ করতে থাকবেন।
যন্ত্র টি এইঃ-

মন্ত্রটি এইঃ- “ওঁ হ্রীং ঐং হ্রীং সরস্বত্যৈ নমঃ”
যন্ত্রটি বা তাবিজ টি তৈরি হয়ে গেলে একটু শুকিয়ে নিবেন। তারপর কোন একটি মাদুলিতে ভরে, পুরুষ বা ছেলে হলে ডান হাতে ও মহিলা বা মেয়ে লোক হলে বাম হাতে ধারণ করতে হবে। এই যন্ত্রটি ব্যবহার করলে লেখাপড়ায় মনোযোগী ও পরিক্ষায় ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।
বিঃদ্রঃ-এই রকম তদবীর গুলো আপনারা চাইলে আামাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে কথা বলে করতে পারেন।