বিবাহে অনিচ্ছুক রমণীকে বিবাহে রাজি করানোর তাবীজ

বিবাহে অনিচ্ছুক রমণীকে বিবাহে রাজি করানোর তাবীজঃ

যে অবিবাহিত মেয়ে লোক বিবাহে অনিচ্ছা প্রকাশ করে কিংবা বিবাহের বয়স আছে যে বিধবার, সে যদি পুনর্বার বিবাহে রাজি না হয় তাহা হইলে নিম্নোক্ত তাবীজটি জাফরান কালি দ্বারা লিখিয়া তাহার গলায় বাঁধিয়া দিবে। ইন্‌শাআল্লাহ ইহাতে তাহার মানসিকতার পরিবর্তন ঘটিবে এবং সে নিজের ইচ্ছায় বিবাহে রাজি হইবে। কৌশলে তাহাকে তাবীজ ব্যবহার করাইবে। কারণ বিবাহে তাবীজ জানিলে হয়ত সে উহা ব্যবহার করিতে অস্বীকার করিতে পারে। (মিথ্যা বলা সর্বাবস্থায় মহাপাপ) তাবীজটি সাদা রেশমী কাপড়ে লিখিবেঃ-

তাবীজটি এইঃ-

যে অবিবাহিতা বয়স্কা পাত্রীর বর জোটে না বা আসে না, উল্লিখিত তাবীজটি তাহার বেলায় ও কার্যকরী প্রমাণিত হইবে। প্রত্যেক ক্ষেত্রেই তাবীজ লিখিবার আগে নিয়ত স্বতন্ত্রভাবে করিতে হইবে এবং এগারবার দরুদ শরীফ পড়িয়া লইতে হইবে।

বিঃদ্রঃ- আপনি যে মেয়ে/প্রেমিকাকে ভালবাসেন, সেও আপনাকে ভালবাসে, কিন্তু সব ঠিক থাকার পরও সে আপনাকে বিয়ে করতে রাজি হয় না। ঠিক সেই সময়ই এই প্রয়োগ টি করতে পারবেন। তবে তাবিজটি ব্যবহার করবে সেই মেয়েটি আপনি যাকে ভালবাসেন। অন্য উপায়ে তাকে এই তাবীজটি পরাতে হবে। কোন ভাবেই যেন, সে বুঝতে পারে যে, এই তাবীজ টি তাকে দেয়া হয়েছে বিবাহের জন্য। তাকে অন্যকিছু বলে তাবীজটি পরাতে রাজী করাতে হবে। আর হ্যা এই তাবীজটি ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই হাদিয়া প্রদান করতে হবে। আর সঠিক নিয়ম জানতে অনুমতি গ্রহণ করতে হবে।। ধন্যবাদ।।

{বিঃদ্রঃ- আপনি যদি লজ্জাতুন নেছা বইটি সংগ্রহ করেন, তাহলে আপনার পার্শোনাল সমস্যা গুলো আপনি নিজেই সমাধান করতে সক্ষম হবেন তাই আর দেরি না করে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে এখনি যোগাযোগ করে বইটি ক্রয় করুন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের মোবাইল এ্যডমিন আপনার কাছে বইটি পাঠিয়ে দিবে কুরিয়ার সার্ভিস এর মাধ্যমে... ধন্যবাদ}