যে কাউকে বশীভূত করার অদ্ভুদ নক্‌শা

যে কাউকে বশীভূত করার অদ্ভুদ নক্‌শাঃ

হ্যালো ভিউয়ারস্ লজ্জাতুন নেছা.কম এর পক্ষ্য থেকে আপনাদের সকলকে জানাই আন্তরিক সুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। আশা করি আপনারা সবাই অনেক ভালো আছেন হয়তোবা হাতে গণা কয়েকজন বাদে। যেনারা আত্মীয় স্বজনকে নিয়ে অনেক সুন্দর জিবন জাপন করতেছেন তাদের প্রতি আরো দোয়া ও আর্শীবাদ রইলো আপনারা লাইফ টাইম সুখে থাকেন। আর যেনারা পরিবার পরিজনদের নিয়ে অনেক হতাসার ভিতরে রয়েছেন! তারা নিচের আলোচনাটি অনুস্মরণ করুন।

  1. আপনার স্ত্রী যদি আপনার অবাধ্য চলে,
  2. আপনার স্বামী যদি আপনার অবাধ্য থাকে ও অন্য মেয়ের সাথে চলাফেরা করে,
  3. আপনার বয়ফ্রেন্ড যদি আপনার কাছ থেকে মাঝে মাঝেই দূরে সরে যায়,
  4. আপনার প্রেমিকা যদি আপনার সাথে ঠিক মতো কথা না বলে অন্য কারোর সাথে আবার রিলেশন তৈরি করে,
  5. আপনার সন্তান যদি অবাধ্য হয়,
  6. আপনার অফিসের বস যদি আপনাকে দেখতে না পারে ও আপনাকে দিয়ে কষ্ট সাধ্য কাজ করিয়ে নেয় কিন্তু আপনার কোন প্রমোশন হয় না,
  7. যদি কোন নারী আপনাকে ঠকিয়ে কিছু জিনিস আত্মস্বাদ করে,
  8. কোন পুরুষ মানুষ যদি কোন মহিলাকে ঠকায় তাহলেও এই নকশাটি ব্যবহার করা যাবে।

এই সমস্ত কাজ গুলি যদি আপনার সাথে ও হয়ে থাকে তাহলে আপনি অবশ্যই নিচের নকশাটি ব্যবহার করবেন। নকশাটি প্রয়োগ করার নিয়মাবলিঃ- যার জন্য কাজ টি করা হবে তার নাম ১ নং এর জায়গায় তার বাবার নাম ২ নং এর জায়গায়। ৩ নং এর জায়গায় আপনার নাম এবং ৪ নং এর জায়গায় আপনার বাবার নাম। যদি আপনি কোন স্ত্রী কিংবা মেয়ে লোকের জন্য কাজটি করেন তাহলে ১ নং এর জায়গায় মেয়ের নাম ও ২ নং এর জায়গায় তার মায়ের নাম হবে। আর বাকিটা ঠিক থাকবে। আবার যদি আপনি নিজে মেয়ে মানুষ হয়ে কোন পুরুষের জন্য কাজটি করতে চান তাহলে ১ নং এর জায়গায় পুরুষ টির নাম ও ২ নং এর জায়গায় তার বাবার নাম ও ৩ নং এর জায়গায় আপনার নাম ও ৪ নং এর জায়গায় আপনার মায়ের দিতে হবে। নকশাটি বৃহস্পতিবার দিন মাগরিবের নামাজ এর পর অংকন করে কাঙ্খিত ব্যক্তির ঘরে বিছানায় লুকিয়ে রাখতে হবে। স্বামী স্ত্রীর ক্ষেত্রে বালিসের নিচে রাখতে হবে। আরো যদি কোন কিছু বুঝতে অসুবিধে হয় তাহলে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে যোগাযোগ করুন। উনি আপনাকে খুব সহজ ভাবে বুঝিয়ে দিবেন।

(মনে রাখবেন এটি একটি খুব শক্তিশালী ও ফলদায়ক নকশা । তাই নকশাটি কেউ অন্যায় ভাবে কারোর উপরে প্রয়োগ করবেন না। নকশাটি প্রয়োগের পূর্বে অবশ্যই কোন গুরুর কাছে বা কোন কামেল হুজুরের কাছে অনুমতি গ্রহণ করবেন। আর যদি কোন গুরু বা হুজুরের সান্বিদ্ধে আসতে না পারেন তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ।

যে কাউকে বশীভূত করার অদ্ভুদ নক্‌শা