শত্রুকে ধ্বংস করার উপায়

মারণ বিধিঃ

মারণ কার্যটিকে তন্ত্রশাস্ত্রে নিন্দনীয় কার্য বলে উল্লেখ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, সেই সঙ্গে বিদ্বেষণ, উচ্চাটন এবং অনুচিত ভাবে কাউকে পাবার জন্য বশীকরণ কার্যকেও গর্হিত ও নিন্দনীয় বলা হয়েছে। যে সব ক্ষেত্রে নিজের প্রাণসংশয় হয়ে ওঠে এবং নিজেকে বাঁচানোর কোনও উপায় থাকে না। সেই সব ক্ষেত্র ব্যতিত কখনও এর প্রয়োগ উচিত নয়- সব সময় এই কথাটি সাধককে মনে রাখতে হবে। তন্ত্রে ষট্‌কর্মের মধ্যে একে একটি কর্ম বলা গণ্য করা হয়েছে। তজ্জন্যই এখানে মারণ প্রক্রিয়ার উল্লেখ করা হলো। একমাত্র নিজের প্রাণ রক্ষার জন্যই এর প্রয়োগ করা যায়। এই কতাটি মনে রেখেই এই কর্মের অনুষ্ঠান করবে। মারণের প্রশস্ত তিথি- একাদশী ও দ্বাদশী। প্রশস্ত দিন রবিবার এবং সোমবার।

মারণ কর্মঃ-

মন্ত্রঃ-“ওঁ হ্লীং অমুকস্য হন হন স্বাহা।”
চন্দ্র বা সূর্যগ্রহনের দিন কিংবা দীপান্বিতা অমাবষ্যার রাত্রিতে নির্জনে উক্ত মন্ত্র ১০,০০০ (দশ হাজার) বার জপ করলে মন্ত্রটি সিদ্ধ হয়। মন্ত্রে ‘অমুকস্য’ স্থলে সাধ্য ব্যক্তির নাম উল্লেখ করতে হবে।
অতঃপর যথারিতী হোমকুন্ড জ্বেলে ১০০০ (এক হাজার) বার কল্‌কে ফুল সরষের তেলে ডুবিয়ে মন্ত্রের সঙ্গে সাধ্য ব্যক্তির নাম উল্লেখ করে হোম করালে শত্রুর মৃত্যু হয়।

{বিঃদ্রঃ- আপনি যদি লজ্জাতুন নেছা বইটি সংগ্রহ করেন, তাহলে আপনার পার্শোনাল সমস্যা গুলো আপনি নিজেই সমাধান করতে সক্ষম হবেন তাই আর দেরি না করে আমাদের মোবাইল এ্যডমিনের সাথে এখনি যোগাযোগ করে বইটি ক্রয় করুন। আপনি যেখানেই থাকুন না কেন আমাদের মোবাইল এ্যডমিন আপনার কাছে বইটি পাঠিয়ে দিবে কুরিয়ার সার্ভিস এর মাধ্যমে... ধন্যবাদ}