সকল মানুষ বশীকরণ

সর্বজন বশীকরণ বটিকাঃ

আপনি কি কোন কোম্পানির মালিক, কোন এলাকার  চেয়ারম্যান কিংবা কোন এলাকার এম.পি অথবা হতে চান এক সমাজ সেবক।

যেকোন ধরনের সমাজের পরিচিত ব্যক্তি হতে হলে আপনাকে অবশ্যই জনবল দরকার পড়বে। কিংবা একজন অফিসের মালিক হলেও কিন্তু আপনাকে কয়েক হাজার শ্রমিক দিয়ে কাজ করাতে হবে। তবে আপনি কি পারবেন এত গুলো লোককে সঠিক ভাবে চালিয়ে নিতে। তাদের কি সবার মন যোগাতে পারবেন? অবশ্যই না। কারন আপনি এক জন মানুষ তাই কিভাবে এতগুলো মানুষের মন জয় করতে পারেন আপনি। অবশ্যই তা করতে আপনি ব্যর্থ হবেন। তেমনি একজন সমাজ সেবক কিন্তু সবার কাছে প্রিয় ব্যক্তি হতে পারেন না। কারন মানুষ হলো খাদ্য ভোজী প্রাণী। তাই তারা যেখানে খাবার বেশি পায় ঠিক সেখানেই তারা শ্লোগান দিয়ে থাকেন। তাই তখন আপনার কথা ভুলে যায়। আপনি নির্বাচনের সময় দেখবেন আপনার সাথে পিছনে রয়েছে কয়েক হাজার জনগন তাদের কে দিয়ে আপনি আপনার প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। চারিদিক থেকে অনেক সাড়া পাচ্ছেন। মনে হয় আপনি নির্বাচনে জয়ী হবেন। কিন্তু এই ধারণা আপনার সবচেয়ে বড় ভুল। কারণ আপনি দেখবেন নির্বাচনের পূর্বে  কয়েক হাজার লোক আপনার ভোটার কিন্তু ফলাফলের বেলায় দেখবেন যে আপনার বাক্সে এক হাজার ও ভোট পড়েনি। আপনার পাশে থাকা ব্যক্তিই অন্যের দিকে হেলে পড়েছিল নির্বাচনের আগের রাতে। তাই অাপনার এই ফলাফল।  কিভাবে আপনি আপনার জনবলকে বশ করে রাখবেন। এ বিষয় নিয়ে আমাদের আজকের আলোচনা। নিম্নলিখিত বিষয়টি নির্বাচনের কয়েক মাস পূর্বে প্রয়োগ করলে আপনি উপরওয়ালার দয়ায় নির্বাচনে জয়ী হতে সক্ষম হবেন। কেউ আপনাকে ঠেকাতে পারবেনা। আর অফিসের মালিকের ক্ষেত্রে সবসময় প্রয়োগ করা যাবে।

মন্ত্র-“ওঁ নমোঃ ভগবতে উড্ডামহেশ্বরায় মোহয় মোহয় মিলি মিলি ঠঃ ঠঃ স্বাহা।”

শুদ্ধস্থানে শুদ্ধবস্ত্রে বসে ধুপ-দ্বীপ জ্বালীয়ে প্রথমে উক্ত মন্ত্রটি ৩০০০০ (ত্রিশ হাজার) বার জপ করে সিদ্ধ করে নিতে হবে। তারপর প্রয়োগ করতে হবে।

প্রয়োগ বিধিঃ- শ্বেত-শরিষা, দেবদারু গাছের মুল একত্রে পেষণ করে বটিকা প্রস্তুত করতে হবে। পরে এই বটিকা মুখে রেখে, যার সঙ্গে কথাবার্তা বলবে, সেই বশীভুত হবে।

বিঃদ্রঃ- নির্বাচনে সকল ভোটার বশীভূত করে ভোট পাওয়ার বিশেষ একটি তদবীর আমরা প্রদান করতেছি, আপনারা যাহারা এই তদবীরটি গ্রহণ করতে ইচ্ছুক শুধু তারাই আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন। ধন্যবাদ। (যোগাযোগ লিংক)